Advertisements

বর্তমানে ধানের দাম কত ২০২৩

4.1/5 - (8 votes)

বর্তমানে ধানের দাম কত ২০২৩:-চাল বাংলাদেশের প্রধান খাদ্য, একটি দক্ষিণ এশিয়ার দেশ যা তার প্রাণবন্ত সংস্কৃতি এবং সমৃদ্ধ ইতিহাসের জন্য পরিচিত। এটি লক্ষ লক্ষ বাংলাদেশীর দৈনিক খাদ্যের একটি অপরিহার্য অংশ এবং এর দাম সরকার ও জনগণ উভয়ের দ্বারাই নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা হয়।

বাংলাদেশে চালের দাম বহু বছর ধরেই আলোচনা ও উদ্বেগের বিষয়। এটি এমন একটি পণ্য যা জনগণের বেঁচে থাকার জন্য অপরিহার্য এবং এর মূল্যের যে কোনো উল্লেখযোগ্য ওঠানামা দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে।

বর্তমানে ধানের দাম

খাদ্যশস্যের নামপাইকারি মূল্য (প্রতি কেজি) (টাকা)খুচরা মূল্য (প্রতি কেজি) (টাকা)
মোটা চাল (সিদ্ধ)৪২.০০-৪৩.০০৪৬.০০-৪৮.০০
আটা (খোলা)৫১.০০-৫২.৬০৫৫.০০-৬০.০০
বর্তমানে ধানের দাম

বাংলাদেশে চালের দাম চাহিদা ও সরবরাহ, আবহাওয়া পরিস্থিতি, পরিবহন খরচ এবং সরকারি নীতি সহ বিভিন্ন কারণের দ্বারা প্রভাবিত হয়। দেশটি প্রতি বছর উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ধান উৎপাদন করে, তবে এর উৎপাদন প্রায়ই বন্যা, ঘূর্ণিঝড় এবং খরার মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ দ্বারা প্রভাবিত হয়।

Advertisements

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশে চালের দাম তুলনামূলকভাবে স্থিতিশীল রয়েছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মতে, 2023 সালের মার্চ মাসে মোটা চালের গড় খুচরা মূল্য ছিল প্রায় 43 বাংলাদেশি টাকা প্রতি কিলোগ্রাম, যা প্রায় 0.50 মার্কিন ডলারের সমতুল্য। উন্নত মানের বলে বিবেচিত মিহি চালের দাম ছিল প্রতি কেজি প্রায় ৫৩ বাংলাদেশি টাকা বা প্রায় ০.৬২ মার্কিন ডলার।

তবে অঞ্চল ও বছরের সময় ভেদে চালের দামের তারতম্য হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, সর্বোচ্চ ফসলের মৌসুমে, সরবরাহ বৃদ্ধির কারণে চালের দাম কম হতে পারে। অন্যদিকে অফ-সিজনে সরবরাহ কম এবং পরিবহন খরচ বেড়ে যাওয়ায় চালের দাম বাড়তে পারে।

বাংলাদেশ সরকার দেশে চালের মূল্য নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। চালের দাম যাতে স্থিতিশীল থাকে এবং জনগণের জন্য সাধ্যের মধ্যে থাকে তা নিশ্চিত করার জন্য এটি বেশ কয়েকটি নীতি বাস্তবায়ন করেছে। এরকম একটি নীতি হল ওপেন মার্কেট সেল (ওএমএস) প্রোগ্রাম, যার লক্ষ্য সমাজের দরিদ্র এবং দুর্বল অংশগুলিকে ভর্তুকি হারে চাল সরবরাহ করা।

সরকার ধানের জন্য একটি ন্যূনতম সমর্থন মূল্যও নির্ধারণ করে, যে মূল্য সরকার কৃষকদের তাদের ধানের জন্য প্রদান করে। এই ন্যূনতম সমর্থন মূল্য কৃষকদের জন্য একটি নিরাপত্তা জাল হিসাবে কাজ করে, যাতে তারা বাজারের কম চাহিদার সময়েও তাদের চালের ন্যায্য মূল্য পায় তা নিশ্চিত করে।

সরকারের প্রচেষ্টা সত্ত্বেও, বাংলাদেশে চালের দাম এখনও অনেক মানুষের জন্য, বিশেষ করে দারিদ্র্যের মধ্যে বসবাসকারীদের জন্য একটি প্রধান উদ্বেগ। দেশটিতে বিশ্বের সর্বোচ্চ দারিদ্র্যের হার রয়েছে এবং চালের দামের যে কোনো উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনে বিধ্বংসী প্রভাব ফেলতে পারে।

ধান বাংলাদেশের একটি অত্যাবশ্যকীয় ফসল, যেখানে কৃষি দেশের জিডিপির প্রায় 16% এবং জনসংখ্যার 45% এর বেশি কর্মসংস্থান প্রদান করে। দেশটি বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম ধান উৎপাদক, এবং প্রায় 11 মিলিয়ন হেক্টর জমিতে ফসল উৎপন্ন হয়, যা দেশের মোট ফসলি জমির 75% তৈরি করে।

যাইহোক, বাংলাদেশে ধানের উৎপাদন প্রায়ই প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন বন্যা, খরা এবং ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ব্যাহত হয়। জলবায়ু পরিবর্তনও একটি ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ, ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা এবং অনিয়মিত বৃষ্টিপাতের ধরণ দেশের ধান উৎপাদনের জন্য হুমকিস্বরূপ।

প্রাকৃতিক দুর্যোগের পাশাপাশি বাংলাদেশে চালের দাম পরিবহন খরচের কারণেও প্রভাবিত হয়। দেশে নদী ও নৌপথের একটি বিস্তীর্ণ নেটওয়ার্ক রয়েছে, যা গ্রামাঞ্চল থেকে শহরে চাল পরিবহনের জন্য ব্যবহৃত হয়। যাইহোক, শুষ্ক মৌসুমে, যখন পানির স্তর কম থাকে, তখন পরিবহন খরচ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেতে পারে, যার ফলে গ্রাহকদের জন্য উচ্চ মূল্য বৃদ্ধি পায়।

বাংলাদেশ সরকার চালের দাম বৃদ্ধির সমস্যা মোকাবেলায় বেশ কিছু নীতি বাস্তবায়ন করেছে। ওএমএস প্রোগ্রাম এবং ন্যূনতম সমর্থন মূল্য ছাড়াও, সরকার সমাজের দরিদ্র এবং দুর্বল অংশগুলির জন্য খাদ্য ভর্তুকির একটি ব্যবস্থাও চালু করেছে। সরকার সার ও বীজের মতো কৃষি উপকরণের জন্য ভর্তুকি প্রদান করে, যাতে কৃষকদের তাদের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করতে এবং উৎপাদন খরচ কমাতে সহায়তা করে।

আরেকটি নীতিগত উদ্যোগ হল বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (BRRI) প্রতিষ্ঠা করা, যেটি নতুন ধানের জাত উদ্ভাবনের জন্য দায়ী যা পোকামাকড় ও রোগ প্রতিরোধী, সেইসাথে জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য আরও স্থিতিস্থাপক। ইনস্টিটিউটটি ধান উৎপাদনের দক্ষতা বৃদ্ধি এবং ফসল কাটার পরে ক্ষতি কমানোর বিষয়েও গবেষণা করে।

যাইহোক, এই প্রচেষ্টা সত্ত্বেও, বাংলাদেশে চালের দাম একটি উদ্বেগের বিষয়, বিশেষ করে সমাজের দরিদ্র শ্রেণীর জন্য। নিম্ন আয় এবং উচ্চ খাদ্য মূল্যস্ফীতির সাথে উচ্চ মাত্রার দারিদ্র্যের অর্থ হল অনেক মানুষ খাদ্য, আবাসন এবং স্বাস্থ্যসেবার মতো মৌলিক প্রয়োজনীয়তা সামলানোর জন্য সংগ্রাম করে।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে চালের বর্তমান মূল্য কত?

উত্তর: বাংলাদেশে চালের দাম অঞ্চল ও বছরের সময়ের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মতে, 2023 সালের মার্চ মাসে মোটা চালের গড় খুচরা মূল্য ছিল প্রায় 43 বাংলাদেশি টাকা প্রতি কিলোগ্রাম, যা প্রায় 0.50 মার্কিন ডলারের সমতুল্য। উন্নত মানের বলে বিবেচিত মিহি চালের দাম ছিল প্রতি কেজি প্রায় ৫৩ বাংলাদেশি টাকা বা প্রায় ০.৬২ মার্কিন ডলার।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে ধান কেন এত গুরুত্বপূর্ণ?

উত্তর: ভাত বাংলাদেশের প্রধান খাদ্য এবং লাখ লাখ বাংলাদেশীর দৈনন্দিন খাদ্যের অপরিহার্য অংশ। দেশের মোট ফসলি জমির প্রায় 75% জমিতে এই শস্য উৎপন্ন হয় এবং দেশের জিডিপির প্রায় 16% কৃষি। চাল জনসংখ্যার 45% এরও বেশি লোকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে, এটি দেশের অর্থনীতির জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ফসল।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে চালের দামের উপর কোন বিষয়গুলো প্রভাব ফেলে?

উত্তর: বাংলাদেশে চালের দাম চাহিদা ও সরবরাহ, আবহাওয়া পরিস্থিতি, পরিবহন খরচ এবং সরকারি নীতি সহ বিভিন্ন কারণের দ্বারা প্রভাবিত হয়। বন্যা, খরা এবং ঘূর্ণিঝড়ের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগও দেশে ধানের উৎপাদন ও দামকে প্রভাবিত করতে পারে।

প্রশ্ন: বাংলাদেশে চালের দাম বৃদ্ধির সমস্যা সমাধানে সরকার কী করছে?

উত্তর: বাংলাদেশ সরকার চালের দাম বৃদ্ধির সমস্যা মোকাবেলায় বেশ কিছু নীতি বাস্তবায়ন করেছে। এর মধ্যে রয়েছে ওপেন মার্কেট সেল (ওএমএস) প্রোগ্রাম, যা সমাজের দরিদ্র এবং দুর্বল অংশগুলিকে ভর্তুকিযুক্ত হারে চাল সরবরাহ করে এবং চালের জন্য একটি ন্যূনতম সমর্থন মূল্য, যা নিশ্চিত করে যে কৃষকরা তাদের চালের ন্যায্য মূল্য পান। সরকার সার এবং বীজের মতো কৃষি উপকরণের জন্য ভর্তুকি প্রদান করে, যাতে কৃষকদের তাদের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করতে এবং উৎপাদন খরচ কমাতে সহায়তা করে।

প্রশ্ন: চালের দাম বৃদ্ধি বাংলাদেশের জনগণের ওপর কী প্রভাব ফেলে?

উত্তর: চালের দাম বৃদ্ধি বাংলাদেশের জনগণের উপর বিশেষ করে দারিদ্র্যের মধ্যে বসবাসকারীদের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে। দেশটিতে বিশ্বের সর্বোচ্চ দারিদ্র্যের হার রয়েছে এবং চালের দামের যে কোনো উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনে বিধ্বংসী প্রভাব ফেলতে পারে। নিম্ন আয় এবং উচ্চ খাদ্য মূল্যস্ফীতির সাথে উচ্চ মাত্রার দারিদ্র্যের অর্থ হল অনেক মানুষ খাদ্য, আবাসন এবং স্বাস্থ্যসেবার মতো মৌলিক প্রয়োজনীয়তা সামলানোর জন্য সংগ্রাম করে।

প্রশ্ন: বাংলাদেশে চালের দাম বৃদ্ধির সমস্যা সমাধানে কী করা যেতে পারে?

উত্তর: বাংলাদেশে চালের মূল্য বৃদ্ধির সমস্যা মোকাবেলা করার জন্য, দেশের দারিদ্র্য ও বৈষম্যের অন্তর্নিহিত সমস্যাগুলি মোকাবেলার জন্য আরও কিছু করা প্রয়োজন। এর মধ্যে রয়েছে কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়নে বিনিয়োগ, অবকাঠামো ও পরিবহন নেটওয়ার্কের উন্নতি, এবং টেকসই কৃষি অনুশীলনের প্রচার। সরকার কৃষক ও ভোক্তা উভয়কে সমর্থন করে এমন নীতি বাস্তবায়নের মাধ্যমে আরও স্থিতিশীল এবং সাশ্রয়ী মূল্যের চালের বাজার তৈরি করতে কাজ করতে পারে।

উপসংহারে বলা যায়, বাংলাদেশে চালের দাম একটি জটিল বিষয় যা বিভিন্ন কারণের দ্বারা প্রভাবিত। যদিও সরকার চালের দাম স্থিতিশীল এবং সাশ্রয়ী মূল্যে থাকা নিশ্চিত করার জন্য বেশ কয়েকটি নীতি বাস্তবায়ন করেছে, দেশে উচ্চ দারিদ্র্যের হারে অবদান রাখে এমন অন্তর্নিহিত সমস্যাগুলি মোকাবেলায় আরও কিছু করা দরকার। সামগ্রিক অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতি ঘটিয়ে এবং কৃষিতে বিনিয়োগ করে, সরকার আরও টেকসই ও স্থিতিশীল চালের বাজার তৈরি করতে সাহায্য করতে পারে, কৃষক ও ভোক্তা উভয়েরই উপকার করে।

Read more posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *