Advertisements
বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী

বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী || বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ২০২৩

Rate this post

বিজয় এক্সপ্রেস ভারতের একটি সুপরিচিত ট্রেন পরিষেবা, যা ভারতীয় রেলওয়ে দ্বারা পরিচালিত হয়। ট্রেনটির নামকরণ করা হয়েছে কিংবদন্তি স্বাধীনতা সংগ্রামী এবং সমাজ সংস্কারক শ্রী বিজয় সিং পথিকের নামে। এটি মুম্বাই থেকে জবলপুর এবং তদ্বিপরীত যাত্রীদের জন্য পরিবহনের একটি জনপ্রিয় মাধ্যম।

বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী
বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী

বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী

বিরতি স্থান বা ট্রেন থামানোর স্টেশনচট্টগ্রাম থেকে (৭৮৫)ময়মনসিংহ থেকে (৭৮৬)
ভাটিয়ারী০৭ঃ৩৭০৫ঃ০৬
ফেনী০৮ঃ৫৫০৩ঃ৪৮
লাকসাম০৯ঃ৪০০৩ঃ০৫
কুমিল্লা১০ঃ২০০২ঃ৩৬
আখাউড়া১১ঃ৩০০০ঃ৫০
ভৈরব বাজার১২ঃ২০০০ঃ০৫
কিশোরগঞ্জ১৩ঃ৩৫২৩ঃ৩৫
গৌরীপুর১৪ঃ৪৫২১ঃ০০
বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী

বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিট ভাড়া

শোভন৩২০ টাকা
শোভন চেয়ার৩৮৫ টাকা
প্রথম সিট৫১৫ টাকা
বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিট ভাড়া

বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেন পরিষেবাটি 2011 সালে চালু করা হয়েছিল, এবং তারপর থেকে, এই দুটি শহরের মধ্যে ভ্রমণকারী যাত্রীদের জন্য এটি একটি পছন্দের পছন্দ হয়ে উঠেছে। ট্রেনটি আনুমানিক 1,200 কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করে এবং যাত্রা সম্পূর্ণ করতে প্রায় 22 ঘন্টা সময় লাগে।

Advertisements

ট্রেনটি প্রতিদিন মুম্বাইয়ের ছত্রপতি শিবাজি টার্মিনাস (সিএসটি) এবং জবলপুর জংশন থেকে চলাচল করে। এটি মুম্বাই থেকে 7:55 PM তে ছেড়ে যায় এবং পরের দিন 5:25 PM-এ জবলপুরে পৌঁছায়। তার ফিরতি যাত্রায়, ট্রেনটি জবলপুর থেকে সকাল 10:05 টায় ছেড়ে যায় এবং পরের দিন 7:35 AM এ মুম্বাই পৌঁছায়। ট্রেনটি সেন্ট্রাল রেলওয়ে জোনে চলে এবং কল্যাণ জংশন, নাসিক রোড, মনমাদ জংশন, ভুসাওয়াল জংশন, খান্ডওয়া জংশন, ইটারসি জংশন এবং নরসিংহপুর সহ রুটের বেশ কয়েকটি স্টেশনে থামে।

ট্রেনটিতে ১৬টি কোচ রয়েছে, যার মধ্যে একটি এসি ১ম শ্রেণির কোচ, দুটি এসি ২-টায়ার কোচ, চারটি এসি থ্রি-টায়ার কোচ, ছয়টি স্লিপার ক্লাস কোচ এবং দুটি সাধারণ শ্রেণির কোচ রয়েছে। বিজয় এক্সপ্রেস এয়ার কন্ডিশনার, আরামদায়ক আসন এবং পরিষ্কার টয়লেটের মতো আধুনিক সুযোগ-সুবিধা দিয়ে সজ্জিত। ট্রেনটিতে একটি প্যান্ট্রি কারও রয়েছে যা যাত্রীদের স্বাস্থ্যকর এবং সুস্বাদু খাবার পরিবেশন করে।

বিজয় এক্সপ্রেসের টিকিটের ভাড়া ভ্রমণের শ্রেণির উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। AC 1st ক্লাসের ভাড়া আনুমানিক INR 4,500, AC 2-tier-এর INR 2,500, AC 3-tier-এর INR 1,800, এবং স্লিপার ক্লাস INR 600৷ সাধারণ ক্লাসের ভাড়া প্রায় INR 300৷

যাত্রীরা ভারতীয় রেলওয়ের ওয়েবসাইট বা কোনও অনুমোদিত বুকিং এজেন্টের মাধ্যমে বিজয় এক্সপ্রেসের জন্য তাদের টিকিট বুক করতে পারেন। আগে থেকেই টিকিট বুক করার পরামর্শ দেওয়া হয় কারণ ট্রেনের প্রায়ই চাহিদা বেশি থাকে এবং টিকিট দ্রুত বিক্রি হয়ে যায়।

বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেন পরিষেবা শুধুমাত্র একটি আরামদায়ক এবং সুবিধাজনক পরিবহণের ব্যবস্থাই করে না বরং ভারতীয় গ্রামাঞ্চলের শ্বাসরুদ্ধকর দৃশ্যও প্রদান করে। ট্রেনটি সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য, ঘূর্ণায়মান পাহাড়, সবুজ মাঠ এবং ঘন বনের মধ্য দিয়ে যায়, যা যাত্রীদের গ্রামীণ ভারতের একটি আভাস দেয়।

যাত্রীরা ভারতীয় রেলওয়ের দেওয়া অনবোর্ড বিনোদনও উপভোগ করতে পারেন। ট্রেনটিতে একটি পাবলিক অ্যাড্রেস সিস্টেম রয়েছে যা সঙ্গীত, সংবাদ এবং অন্যান্য তথ্য সম্প্রচার করে। যাত্রীরা ট্রেনের এলইডি স্ক্রিনে সিনেমা এবং টিভি শো দেখতে পারেন, যা প্রতিটি কোচে পাওয়া যায়।

বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেন পরিষেবাটি তার সময়ানুবর্তিতা এবং নির্ভরযোগ্যতার জন্যও পরিচিত। ট্রেন যাতে সময়মতো চলে এবং যাত্রীরা কোনো বিলম্ব ছাড়াই তাদের গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে তা নিশ্চিত করতে ভারতীয় রেলওয়ে সমস্ত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়। অতিরিক্তভাবে, ট্রেনটি যাত্রীদের নিরাপত্তা ও মঙ্গল নিশ্চিত করতে অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র, ধোঁয়া সনাক্তকারী এবং জরুরী ব্রেকগুলির মতো উন্নত সুরক্ষা বৈশিষ্ট্যগুলির সাথে সজ্জিত।

ট্রেনের কন্ডাক্টর, টিকিট পরীক্ষক এবং প্যান্ট্রি কার অ্যাটেনডেন্ট সহ ট্রেনের কর্মীরা প্রশিক্ষিত এবং পেশাদার। তারা যাত্রীদের যেকোনো প্রশ্ন বা উদ্বেগের সাথে সহায়তা করতে এবং ভ্রমণটি যতটা সম্ভব আরামদায়ক এবং মনোরম হয় তা নিশ্চিত করতে সর্বদা প্রস্তুত।

এর দৈনন্দিন ক্রিয়াকলাপ ছাড়াও, বিজয় এক্সপ্রেস দিওয়ালি, ক্রিসমাস এবং নববর্ষের মতো শীর্ষ ভ্রমণের মরসুমে একটি বিশেষ পরিষেবা প্রদান করে। এই সময়ে, চাহিদা বাড়ার জন্য ট্রেনটি অতিরিক্ত কোচ চালায় এবং যাত্রীরা যাতে কোনো অসুবিধার সম্মুখীন না হয় তা নিশ্চিত করতে।

সামগ্রিকভাবে, বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেন পরিষেবা হল মুম্বাই এবং জবলপুরের মধ্যে ভ্রমণকারী যাত্রীদের জন্য একটি নির্ভরযোগ্য, সুবিধাজনক এবং আনন্দদায়ক পরিবহণের মাধ্যম। এর আরামদায়ক কোচ, আধুনিক সুযোগ-সুবিধা এবং দক্ষ পরিষেবা এটিকে সব বয়সের যাত্রীদের জন্য একটি চমৎকার পছন্দ করে তোলে।

উপসংহার

বিজয় এক্সপ্রেস হল মুম্বাই এবং জবলপুরের মধ্যে ভ্রমণকারী যাত্রীদের জন্য একটি সুবিধাজনক এবং আরামদায়ক ট্রেন পরিষেবা। এর আধুনিক সুযোগ-সুবিধা, সাশ্রয়ী মূল্যের ভাড়া, এবং দক্ষ পরিষেবা সহ, এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই যে এটি ভ্রমণকারীদের জন্য একটি জনপ্রিয় পছন্দ হয়ে উঠেছে। আপনি যদি এই রুটে ভ্রমণের পরিকল্পনা করে থাকেন, তাহলে ঝামেলামুক্ত এবং আনন্দদায়ক ভ্রমণের জন্য বিজয় এক্সপ্রেসের কথা বিবেচনা করতে ভুলবেন না।

আমি আপনাকে একটি FAQ এর মাধ্যমে বাংলাদেশে ট্রেন ভ্রমণ সম্পর্কে কিছু সাধারণ তথ্য প্রদান করতে পারি:

প্রশ্নঃ বাংলাদেশের জনপ্রিয় ট্রেন রুট কি কি?

উত্তর: বাংলাদেশের কিছু জনপ্রিয় ট্রেন রুটের মধ্যে রয়েছে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম, ঢাকা থেকে সিলেট, ঢাকা থেকে রাজশাহী এবং ঢাকা থেকে খুলনা।

প্রশ্নঃ আমি কিভাবে বাংলাদেশে ট্রেনের টিকিট বুক করব?

উত্তর: বাংলাদেশে ট্রেনের টিকিট অনলাইনে, রেলস্টেশনে বা অনুমোদিত ট্রাভেল এজেন্টদের মাধ্যমে সহ বিভিন্ন পদ্ধতির মাধ্যমে বুক করা যেতে পারে। আপনি অনলাইনে টিকিট বুক করতে বা ট্রেনের সময়সূচী চেক করতে বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইটে যেতে পারেন।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে কোন ধরনের ট্রেনের ক্লাস পাওয়া যায়?

উত্তর: বাংলাদেশে যে ধরনের ট্রেনের ক্লাস পাওয়া যায় তার মধ্যে রয়েছে ফার্স্ট-ক্লাস এসি, ফার্স্ট-ক্লাস নন-এসি, স্নিগ্ধা (শীতান নিয়ন্ত্রিত), এসি চেয়ার এবং নন-এসি চেয়ার।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশী ট্রেনে কি কি সুবিধা পাওয়া যায়?

উত্তর: বাংলাদেশী ট্রেনে উপলব্ধ সুযোগ-সুবিধাগুলি ভ্রমণের শ্রেণির উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। ফার্স্ট-ক্লাস এসি এবং স্নিগ্ধা ক্লাসে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা, আরামদায়ক বসার জায়গা এবং খাবারের ব্যবস্থা রয়েছে। নন-এসি ক্লাসে এয়ার কন্ডিশন নাও থাকতে পারে এবং বেসিক বসার ব্যবস্থা অফার করে। যাইহোক, সমস্ত ট্রেনে টয়লেট সুবিধা রয়েছে এবং কিছু ট্রেনে ডাইনিং কার বা প্যান্ট্রি পরিষেবা রয়েছে।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে ট্রেনের সময়সূচী কেমন?

উত্তর: রুট এবং ট্রেন পরিষেবার উপর নির্ভর করে বাংলাদেশে ট্রেনের সময়সূচী পরিবর্তিত হয়। যাইহোক, ট্রেনগুলি সাধারণত প্রতিদিন চলাচল করে, সারা দিনে একাধিক প্রস্থান সহ। আপনার জন্য সুবিধাজনক সময়ে আপনি ভ্রমণ করতে পারেন তা নিশ্চিত করতে আপনার টিকিট বুক করার আগে ট্রেনের সময়সূচী পরীক্ষা করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে ট্রেন ভ্রমণের খরচ কত?

উত্তর: বাংলাদেশে ট্রেন ভ্রমণের খরচ ভ্রমণের শ্রেণি, রুট এবং ট্রেন পরিষেবার উপর নির্ভর করে। দাম সাধারণত সাশ্রয়ী হয়, এবং ট্রেন ভ্রমণ দেশটি অন্বেষণ করার জন্য একটি সাশ্রয়ী উপায়।

প্রশ্ন: বাংলাদেশে ট্রেন ভ্রমণ সম্পর্কে আমার কী জানা উচিত?

উত্তর: বাংলাদেশে ট্রেন ভ্রমণ একটি অনন্য এবং উপভোগ্য অভিজ্ঞতা হতে পারে। যাইহোক, আপনার পারিপার্শ্বিক অবস্থা সম্পর্কে সচেতন হওয়া, আপনার জিনিসপত্র সুরক্ষিত রাখা এবং ট্রেন কর্মীদের দ্বারা প্রদত্ত সমস্ত নিরাপত্তা নির্দেশাবলী অনুসরণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়। উপরন্তু, কোনো অসুবিধা বা হতাশা এড়াতে আপনার টিকিট আগে থেকেই বুক করা গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে পিক ট্র্যাভেল সিজনে।

Read more posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *