Advertisements

জ্বালানি তেলের দাম ২০২৩ || আজকের জ্বালানি তেলের দাম কত

Souvik maity
5 Min Read
জ্বালানি তেলের দাম
Advertisements

নমস্কার বন্ধুরা আপনাদের সকলকে স্বাগত জানাচ্ছি আমাদের ওয়েবসাইটে বন্ধুরা আজকে আমি আপনাদের জানিয়ে দেবো জ্বালানি তেলের বর্তমান দাম বাংলাদেশে কত চলছে বন্ধুরা আজকে আমি আপনাদের জ্বালানি তেল অর্থাৎ পেট্রোল ও ডিজেলের বর্তমান বাজারদর বর্তমান বাংলাদেশের কত তা আপনাদের সাথে শেয়ার করব তো বন্ধুরা জ্বালানি তেলের দাম কত তার বিস্তারিত জানার জন্য আপনাদের অনুরোধ করছি আমাদের এই পোস্টটি শেষ পর্যন্ত পড়বেন।

জ্বালানি তেলের দাম বাংলাদেশ

তো চলুন বন্ধুরা দেখে নিয়ে যাক প্রথমে পেট্রোলের দাম বর্তমান বাংলাদেশে কত চলছে।

পেট্রলের বর্তমান মূল্য

পেট্রোলের পরিমাণ পেট্রোলের দাম
1 লিটার125 টাকা
10 লিটার1250 টাকা
100 লিটার12500 টাকা
1000 লিটার125000 টাকা
বাংলাদেশের পেট্রোলের দাম 2023

এবারে বন্ধুরা দেখে নিয়ে যাক বর্তমান বাংলাদেশের ডিজেলের মূল্য কত চলছে।

whatapp channel

ডিজেলের বর্তমান দাম

ডিজেলের পরিমাণডিজেলের মূল্য
1 লিটার109 টাকা
10 লিটার1,090 টাকা
100 লিটার10,900 টাকা
1000 লিটার1,09,000 টাকা
ডিজেলের বর্তমান বাজার মূল্য বাংলাদেশ

জ্বালানি তেল যেমন পেট্রোল ডিজেল ছাড়া আমাদের একদিনও চলা সম্ভব নয় এবং নিত্যদিন সেই দাম বৃদ্ধির কারণে দেশে অনেকটাই অর্থনৈতিক প্রভাব ফেলে তাই বন্ধুরা, বর্তমানে পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম আকাশচুম্বি তাই বন্ধুরা আপনাদের সঠিক দাম জেনে নেয়া উচিত।

বন্ধুরা আশা করি আমাদের দেয়া তথ্য থেকে আপনারা জ্বালানি তেলের বর্তমান দাম বর্তমান বাংলাদেশের কত চলছে তা জানতে পেরেছেন বন্ধুরা আমাদের দেয়া তথ্যটি ভালো লাগলে আপনাদের অনুরোধ করবো এই পোস্টটি শেয়ার করবেন আপনার বন্ধু-বান্ধবদের সাথে যাতে তারাও নতুন বাংলাদেশে জ্বালানি তেল যেমন পেট্রোল ও ডিজেলের দাম কত তা জানতে পারে।

বন্ধুরা আমাদের ওয়েবসাইটে প্রতিদিন জ্বালানি তেল সহ বিভিন্ন দেশের স্বর্ণের মূল্য টাকা রেজের আপডেট দেয়া হয়ে থাকে তাই বন্ধুরা সেই সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ সকল প্রশ্নের আপডেট পেতে আপনাদের অনুরোধ করব আপনারা অবশ্যই নোটিফিকেশন অন করবেন এবং যুক্ত হয়ে যাবেন আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে।

বন্ধুরা নিচে আমি আপনাদের জ্বালানি তেলের বর্তমান দাম এবং জ্বালানি তেলের গুরুত্ব সহ আপনাদের কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হলো

1. জ্বালানী কি?

জ্বালানি এমন একটি পদার্থ যা দহনের মাধ্যমে শক্তি উৎপাদনের জন্য পোড়ানো হয়। এটি সাধারণত যানবাহন, পাওয়ার প্ল্যান্ট এবং তাপ, যান্ত্রিক কাজ বা বিদ্যুৎ উৎপন্ন করার জন্য অন্যান্য বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনে ব্যবহৃত হয়।

2. জ্বালানী প্রধান ধরনের কি কি?

বিভিন্ন ধরণের জ্বালানী রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে: জীবাশ্ম জ্বালানি: যেমন পেট্রল, ডিজেল, প্রাকৃতিক গ্যাস এবং কয়লা।
জৈব জ্বালানি: ভুট্টা, আখ এবং শেওলা জাতীয় জৈব পদার্থ থেকে তৈরি।
হাইড্রোজেন: প্রায়শই বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য জ্বালানী কোষে ব্যবহৃত হয়।
পারমাণবিক জ্বালানী: পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ব্যবহৃত হয়, যেমন ইউরেনিয়াম এবং প্লুটোনিয়াম।

3. ডিজেল জ্বালানী থেকে পেট্রল কীভাবে আলাদা?

গ্যাসোলিন হল একটি হালকা এবং অধিক উদ্বায়ী জ্বালানী যা প্রাথমিকভাবে স্পার্ক-ইগনিশন ইঞ্জিনে ব্যবহৃত হয় (যেমন, পেট্রল ইঞ্জিন)। ডিজেল জ্বালানী ঘন এবং কম উদ্বায়ী, কম্প্রেশন-ইগনিশন ইঞ্জিনে ব্যবহৃত হয় (যেমন, ডিজেল ইঞ্জিন)।

4. জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানোর পরিবেশগত প্রভাব কী?

জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানো কার্বন ডাই অক্সাইড (CO2) এবং অন্যান্য দূষক বায়ুমণ্ডলে ছেড়ে দেয়, যা বিশ্ব উষ্ণায়ন এবং বায়ু দূষণে অবদান রাখে। এটি জলবায়ু পরিবর্তনের একটি প্রধান কারণ।

5. জীবাশ্ম জ্বালানির বিকল্প আছে কি?

হ্যাঁ, বৈদ্যুতিক, হাইড্রোজেন, জৈব জ্বালানি এবং পারমাণবিক শক্তির মতো বিকল্প জ্বালানি রয়েছে যা কম গ্রীনহাউস গ্যাস নির্গমন করে এবং আরও টেকসই হতে পারে।

6. নবায়নযোগ্য এবং অ-নবায়নযোগ্য জ্বালানির মধ্যে পার্থক্য কী?

নবায়নযোগ্য জ্বালানী উৎস থেকে প্রাপ্ত হয় যা সময়ের সাথে সাথে প্রাকৃতিকভাবে পূরণ করা যায়, যেমন সৌর, বায়ু এবং জৈব জ্বালানী। জীবাশ্ম জ্বালানির মতো অ-নবায়নযোগ্য জ্বালানিগুলি সীমিত এবং সময়ের সাথে সাথে ক্ষয়প্রাপ্ত হয়।

7. আমি কীভাবে আমার গাড়িতে জ্বালানি দক্ষতা উন্নত করতে পারি?

আপনি আপনার গাড়ির রক্ষণাবেক্ষণ (যেমন, নিয়মিত টিউন-আপ), রক্ষণশীলভাবে ড্রাইভিং, অলসতা কমিয়ে, টায়ার সঠিকভাবে স্ফীত রেখে এবং অল্প অল্প করে এয়ার কন্ডিশনার ব্যবহার করে জ্বালানি দক্ষতা উন্নত করতে পারেন।

8. পেট্রলের অকটেন রেটিং কত?

অকটেন রেটিং দহনের সময় নকিং বা পিং করার জন্য পেট্রোলের প্রতিরোধের পরিমাপ করে। ইঞ্জিন নকিং প্রতিরোধ করতে উচ্চ-কার্যক্ষমতার ইঞ্জিনগুলিতে উচ্চ-অকটেন গ্যাসোলিন ব্যবহার করা হয়।

9. কিভাবে প্রাকৃতিক গ্যাস জ্বালানী উৎস হিসেবে ব্যবহৃত হয়?

প্রাকৃতিক গ্যাস গরম করার জন্য, বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য এবং পরিবহন জ্বালানী হিসাবে (সংকুচিত প্রাকৃতিক গ্যাস বা CNG) ব্যবহার করা হয়। এটি অন্যান্য জীবাশ্ম জ্বালানির তুলনায় পরিষ্কার বলে মনে করা হয়।

10. জ্বালানি ও শক্তির উৎসের ভবিষ্যৎ কী?

জ্বালানীর ভবিষ্যত জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে লড়াই করতে এবং দূষণ কমানোর জন্য বৈদ্যুতিক যানবাহন (EVs), হাইড্রোজেন জ্বালানী কোষ এবং পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির উত্সের মতো ক্লিনার, আরও টেকসই উত্সের দিকে সরে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে৷

সকলকে অসংখ্য অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে বর্তমান জ্বালানি তেলের দাম জানার জন্য সকলের সুস্থ থাকবেন ভালো থাকবেন এবং এই ধরনেরই সকল প্রকার আপডেট পেতে চোখ রাখবেন আমাদের ওয়েবসাইটে।

Share This Article
Leave a comment