ইতালি ভিসা খরচ ২০২৪ – যেতে কত টাকা লাগে?

Souvik maity
7 Min Read

ইতালি ভিসা খরচ 2024: 2024 সালে বাংলাদেশ থেকে ইতালি ভ্রমণের পরিকল্পনা করছেন? আপনার ইতালীয় অ্যাডভেঞ্চার শুরু করার আগে ভিসার প্রয়োজনীয়তা এবং সংশ্লিষ্ট খরচ সম্পর্কে সচেতন হওয়া অপরিহার্য। এই নিবন্ধটির লক্ষ্য 2024 সালে বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য ইতালি ভিসার খরচের একটি বিস্তৃত ওভারভিউ প্রদান করা, যা আপনাকে কার্যকরভাবে আপনার ভ্রমণের পরিকল্পনা করতে এবং সেই অনুযায়ী বাজেট করতে সক্ষম করে।

ইতালি ভিসা খরচ 2024

ইতালির জন্য ভিসার ধরন

ইতালি আপনার ভ্রমণের উদ্দেশ্য এবং সময়কালের উপর নির্ভর করে বিভিন্ন ধরণের ভিসা অফার করে। বাংলাদেশী ভ্রমণকারীদের জন্য সবচেয়ে সাধারণ ভিসার প্রকারের মধ্যে রয়েছে ট্যুরিস্ট ভিসা, ব্যবসায়িক ভিসা, স্টুডেন্ট ভিসা এবং ফ্যামিলি রিইউনিয়ন ভিসা। প্রতিটি ভিসার ধরন তার নির্দিষ্ট প্রয়োজনীয়তা এবং সংশ্লিষ্ট খরচ আছে.

ইতালি ভিসা আবেদন প্রক্রিয়া

একটি ইতালি ভিসা পেতে, বাংলাদেশী নাগরিকদের একটি নির্দিষ্ট আবেদন প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হবে। এই প্রক্রিয়ায় প্রয়োজনীয় নথি জমা দেওয়া, আবেদনপত্র সঠিকভাবে পূরণ করা এবং ভিসা ফি প্রদান করা জড়িত। একটি মসৃণ এবং সফল আবেদন নিশ্চিত করতে বাংলাদেশে ইতালীয় দূতাবাস বা কনস্যুলেট প্রদত্ত নির্দেশিকাগুলি মেনে চলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷

বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য ইতালি ভিসার খরচ

বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য একটি ইতালি ভিসার খরচ ভিসার ধরন এবং থাকার সময়কালের উপর নির্ভর করে। এখানে 2023 সালের ভিসা ফিগুলির একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ রয়েছে:

  1. শর্ট স্টে ভিসা (শেঞ্জেন ভিসা):
    • ট্রানজিট ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
    • ট্যুরিস্ট ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
    • ব্যবসায়িক ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
    • স্টুডেন্ট ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
    • পারিবারিক পুনর্মিলনী ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
  2. দীর্ঘস্থায়ী ভিসা (জাতীয় ভিসা):
    • কাজের ভিসা: €116 (প্রায় 13,655 বাংলাদেশী টাকা)
    • স্টাডি ভিসা: €50 (প্রায় 5,890 বাংলাদেশী টাকা)
    • ফ্যামিলি রিইউনিয়ন ভিসা: €50 (প্রায় 5,890 বাংলাদেশী টাকা)

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে এই ফিগুলি পরিবর্তন সাপেক্ষে, এবং সবচেয়ে আপ-টু-ডেট তথ্যের জন্য বাংলাদেশে ইতালীয় দূতাবাস বা কনস্যুলেটের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট চেক করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

অতিরিক্ত খরচ

ভিসা ফি ছাড়াও, ইতালি ভিসা আবেদন প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত অতিরিক্ত খরচ হতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে:

  1. সার্ভিস চার্জ: বাংলাদেশে ইতালীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্র আপনার আবেদন প্রক্রিয়াকরণের জন্য একটি পরিষেবা ফি নিতে পারে। এই ফি ভিসা ফি থেকে আলাদা এবং আপনার আবেদন পরিচালনার প্রশাসনিক খরচ কভার করে।
  2. ভ্রমণ বীমা: এটি অত্যন্ত সুপারিশ করা হয় ভ্রমণ বীমা যা আপনার ইতালিতে থাকার সময় চিকিৎসা খরচ এবং জরুরী অবস্থা কভার করে। ভ্রমণ বীমা খরচ আপনার ভ্রমণের কভারেজ এবং সময়কালের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়।
  3. বায়োমেট্রিক ডেটা সংগ্রহ: ভিসা আবেদন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে বাংলাদেশি নাগরিকদের বায়োমেট্রিক ডেটা (আঙুলের ছাপ এবং ছবি) প্রদান করতে হয়। কিছু ভিসা আবেদন কেন্দ্র এই পরিষেবার জন্য আলাদা ফি নিতে পারে।

উপসংহার:

2023 সালে ইতালি ভ্রমণের পরিকল্পনাকারী বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য একটি ইতালি ভিসা প্রাপ্তি একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ৷ ভিসার প্রয়োজনীয়তা এবং সংশ্লিষ্ট খরচগুলি বোঝা আপনাকে কার্যকরভাবে আপনার ভ্রমণের পরিকল্পনা করতে এবং শেষ মুহূর্তের বিস্ময় এড়াতে সহায়তা করবে৷ ভিসা প্রক্রিয়া এবং ফি সংক্রান্ত সবচেয়ে সঠিক এবং আপ-টু-ডেট তথ্যের জন্য বাংলাদেশে ইতালীয় দূতাবাস বা কনস্যুলেটের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট দেখতে ভুলবেন না। আপনার ভিসা আবেদন প্রক্রিয়াকরণের জন্য পর্যাপ্ত সময় দেওয়ার জন্য এবং আপনার ইতালীয় ভ্রমণকে একটি স্মরণীয় এবং ঝামেলামুক্ত অভিজ্ঞতা করতে আগে থেকেই আবেদন করতে ভুলবেন না।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন (FAQ) – বাংলাদেশের জন্য ইতালি ভিসা খরচ 2024

প্রশ্ন 1: 2024 সালে বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য একটি ইতালি ভিসার মূল্য কত?

A1: বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য একটি ইতালি ভিসার খরচ ভিসার ধরন এবং সময়কালের উপর নির্ভর করে। 2024 সালে ভিসা ফি নিম্নরূপ:শর্ট স্টে ভিসা (শেঞ্জেন ভিসা):
ট্রানজিট ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
ট্যুরিস্ট ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
ব্যবসায়িক ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
স্টুডেন্ট ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
পারিবারিক পুনর্মিলনী ভিসা: €80 (প্রায় 9,420 বাংলাদেশী টাকা)
দীর্ঘস্থায়ী ভিসা (জাতীয় ভিসা):
কাজের ভিসা: €116 (প্রায় 13,655 বাংলাদেশী টাকা)
স্টাডি ভিসা: €50 (প্রায় 5,890 বাংলাদেশী টাকা)
ফ্যামিলি রিইউনিয়ন ভিসা: €50 (প্রায় 5,890 বাংলাদেশী টাকা)
অনুগ্রহ করে মনে রাখবেন যে এই ফিগুলি পরিবর্তন সাপেক্ষে, এবং সবচেয়ে আপ-টু-ডেট তথ্যের জন্য বাংলাদেশে ইতালীয় দূতাবাস বা কনস্যুলেটের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট চেক করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

প্রশ্ন 2: ইতালি ভিসা আবেদন প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত কোন অতিরিক্ত খরচ আছে?

A2: হ্যাঁ, ভিসা ফি ছাড়াও, ইতালি ভিসা আবেদন প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত অতিরিক্ত খরচ হতে পারে।
এই খরচ অন্তর্ভুক্ত হতে পারে:সার্ভিস চার্জ: বাংলাদেশে ইতালীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্র আপনার আবেদন প্রক্রিয়াকরণের জন্য একটি পরিষেবা ফি নিতে পারে।
এই ফি ভিসা ফি থেকে আলাদা এবং আপনার আবেদন পরিচালনার প্রশাসনিক খরচ কভার করে।
ভ্রমণ বীমা: এটি অত্যন্ত সুপারিশ করা হয় ভ্রমণ বীমা যা আপনার ইতালিতে থাকার সময় চিকিৎসা খরচ এবং জরুরী অবস্থা কভার করে।
ভ্রমণ বীমা খরচ আপনার ভ্রমণের কভারেজ এবং সময়কালের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়।
বায়োমেট্রিক ডেটা সংগ্রহ: ভিসা আবেদন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে বাংলাদেশি নাগরিকদের বায়োমেট্রিক ডেটা (আঙুলের ছাপ এবং ছবি) প্রদান করতে হয়।
কিছু ভিসা আবেদন কেন্দ্র এই পরিষেবার জন্য আলাদা ফি নিতে পারে।

প্রশ্ন 3: আমি ইতালির ভিসার প্রয়োজনীয়তা এবং ফি সম্পর্কে সবচেয়ে আপ-টু-ডেট তথ্য কোথায় পেতে পারি?

A3: ভিসার প্রয়োজনীয়তা, আবেদন প্রক্রিয়া এবং ফি সংক্রান্ত সবচেয়ে সঠিক এবং আপ-টু-ডেট তথ্যের জন্য বাংলাদেশে ইতালীয় দূতাবাস বা কনস্যুলেটের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট চেক করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। দূতাবাসের ওয়েবসাইট বিস্তারিত নির্দেশনা, আবেদনপত্র এবং ভিসা ফিতে সাম্প্রতিক পরিবর্তনগুলি প্রদান করবে।

প্রশ্ন 4: আমি কি বাংলাদেশ থেকে অনলাইনে ইতালি ভিসার জন্য আবেদন করতে পারি?

A4: না, বর্তমানে, বাংলাদেশে ইতালীয় দূতাবাস বা কনস্যুলেট অনলাইন ভিসার আবেদন গ্রহণ করে না। আপনার আবেদন জমা দিতে এবং প্রয়োজনীয় নথি প্রদান করতে আপনাকে ব্যক্তিগতভাবে ভিসা আবেদন কেন্দ্রে যেতে হবে।

প্রশ্ন 5: ইতালির ভিসার জন্য আমার কত আগে আবেদন করা উচিত?

A5: আপনার পরিকল্পিত ভ্রমণের তারিখের আগেই একটি ইতালি ভিসার জন্য আবেদন করার পরামর্শ দেওয়া হয়। প্রক্রিয়াকরণের জন্য পর্যাপ্ত সময় দেওয়ার জন্য এবং কোনো অপ্রত্যাশিত বিলম্বকে মিটমাট করার জন্য আপনার উদ্দেশ্য প্রস্থানের তারিখের অন্তত 3 থেকে 4 সপ্তাহ আগে আপনার ভিসার আবেদন জমা দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

প্রশ্ন 6: আমি কি বাংলাদেশী টাকায় ইতালির ভিসা ফি দিতে পারি?

A6: না, ইতালির ভিসা ফি সাধারণত ইউরো (€) এ প্রদেয়। অর্থপ্রদান করার সময় আপনাকে প্রচলিত বিনিময় হারে বাংলাদেশী টাকাকে ইউরোতে রূপান্তর করতে হবে।

প্রশ্ন 7: বাচ্চাদেরও কি প্রাপ্তবয়স্কদের মতো একই ভিসা ফি দিতে হবে?

A7: হ্যাঁ, শিশুদের, তাদের বয়স নির্বিশেষে, প্রাপ্তবয়স্কদের মতো একই ভিসা ফি দিতে হবে।

Share This Article
Leave a comment